মর্নিং সিকনেস নিয়ে নাজেহাল? গর্ভবতীরা জেনে নিন সহজ টোটকা


হাইলাইটস

  • গর্ভাবস্থায় যথেষ্ট বিশ্রাম নেওয়া একান্ত জরুরি।
  • রাতে ঘুম ভালো না হলে দিনের বেলা এক ফাঁকে কিছুক্ষণ ঘুমিয়ে নিন।
  • তবে খেয়ে উঠেই ঘুমোতে চলে যাবেন না।
  • কারণ এর ফলে বমিভাব আরও বাড়তে পারে।

এই সময় জীবন যাপন ডেস্ক: নিজের শরীরে অন্য একটা প্রাণের বেড়ে ওঠার অনুভূতির মধ্যে যে আনন্দ, তা আর কিছুর সঙ্গেই তুলনা করা যায় না। তবে গর্ভাবস্থা মহিলাদের জীবনে শুধু খুশি নিয়ে আসে না, তার সঙ্গে থাকে প্রচুর শারীরিক কষ্ট। মা হওয়ার জন্য প্রচুর শারীরিক যন্ত্রনা সহ্য করতে হয় মহিলাদের। গর্ভবতী মহিলারা যে সমস্ত কষ্ট সহ্য করেন তার মধ্য অন্যতম হল মর্নিং সিকনেস।

গর্ভবতী মহিলাদের মধ্যে বেশিরভাগেরই মর্নিং সিকনেস দেখা যায়। বিশেষ করে গর্ভাবস্থার প্রথম ট্রিমেস্টারে মর্নিং সিকনেস বেশি থাকে। নাম মর্নিং সিকনেস হলেও অনেকেরই সারা দিন ধরে এই সমস্যা চলতে থাকে। গর্ভাবস্থায় মহিলাদের শরীরের এস্ট্রোজেন লেভেল অনেকটাই বেড়ে যায়। সেই কারণে বমি ভাব এই সময়ের খুব কমন একটা সমস্যা। ঘরোয়া কিছু টোটকায় মর্নিং সিকনেসের সমস্যা অনেকটাই এড়ানো যায়।

সন্তানকে স্তন্যদান করলে অবশ্যই এড়িয়ে চলুন এই সব খাবার!
* গর্ভাবস্থায় যথেষ্ট বিশ্রাম নেওয়া একান্ত জরুরি। রাতে ঘুম ভালো না হলে দিনের বেলা এক ফাঁকে কিছুক্ষণ ঘুমিয়ে নিন। তবে খেয়ে উঠেই ঘুমোতে চলে যাবেন না। কারণ এর ফলে বমিভাব আরও বাড়তে পারে।

* গর্ভাবস্থায় যথেষ্ট বিশ্রাম নেওয়া একান্ত জরুরি। রাতে ঘুম ভালো না হলে দিনের বেলা এক ফাঁকে কিছুক্ষণ ঘুমিয়ে নিন। তবে খেয়ে উঠেই ঘুমোতে চলে যাবেন না। কারণ এর ফলে বমিভাব আরও বাড়তে পারে।

* অনেক সময় গর্ভবতীরা ভালো করে খেতে পারেন না। সব সময় মনে হয় তাঁদের যেন পেট ভরে আছে। ভালো করে না খেলেও কিন্তু বমি পাবে। তাই কখনোই খালি পেটে থাকা চলবে না। দরকার হলে বারে বারে অল্প করে খান। বিস্কিট, বাদাম বা ড্রাই ফ্র‌ুটস বিছানার পাশে রেখে দিন। ঘুম ভাঙতেই একটু কিছু খেয়ে নিলে দেখবেন মর্নিং সিকনেস অনেকটাই কম লাগবে।

* এক টুকরো আদা চিবিয়েও দেখতে পারেন। এর ফলেও অনেক সময় বমিভাব কমে যায়। আদা চা বা জিনজার ক্যান্ডি খেলেও কাজ দেবে।

রয়েছে গর্ভবতী হওয়ার সব লক্ষণ, তবু রিপোর্ট নেগেটিভ! যে কারণে এমন হতে পারে…
* বাইরের ভাজাভুজি এই সময় যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলুন। বেশি মিষ্টিও এই সময় না খাওয়াই ভালো। নতুন কোনও গর্ভাবস্থায় ট্রাই করবেন না। অনেক মহিলাদের হাই প্রোটিন, হাই কার্বস এবং নোনতা খাবার বমিভাব আসে।

* গর্ভাবস্থায় কড়া গন্ধ থেকে দূরে থাকার চেষ্টা করুন। সিগারেটের ধোঁয়া, পারফিউম বা কড়া গন্ধ আছে এমন সব কিছুই এড়িয়ে চলুন।

* গর্ভাবস্থায় যে সব ভিটামিন খেতে বলা হয় সেগুলো বাদ দিলে চলবে না। আয়রন ট্যাবলেট বমিভাব কমাতে অনেকটাই সাহায্য করে। ভিটামিন ট্যাবলেট সকালে ঘুম থেকে উঠে নয়, রাতে শোওয়ার আগে খান। আয়রন সাপ্লিমেন্ট খেয়ে গা গোলালে ডাক্তারের সঙ্গে কথা বলুন।

এই সময় ডিজিটালের লাইফস্টাইল সংক্রান্ত সব আপডেট এখন টেলিগ্রামে। সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন এখানে।